এডিস মশার লার্ভা নির্মূলে ডিএনসিসির ভ্রাম্যমাণ আদালত

নিজস্ব বার্তা প্রতিবেদক : এডিস মশার লার্ভা নির্মূলে বুধবার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ৪টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় ডিএনসিসির উত্তরা অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সেলিম ফকির উত্তরা ল্যাব এইড হাসপাতালকে ৫ লাখ টাকা, ক্রিসেন্ট হাসপাতালকে ২ লাখ টাকা, কিং ফিশার নামে একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানকে ৩০ হাজার টাকা এবং একটি ফুলের দোকানকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

গুলশানে ডিএনসিসির প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্দুল হামিদ মিয়া ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ল্যাভেন্ডারে এসি ও ফ্রিজের পানি জমা হয়ে সেখানে প্রচুর এডিস মশার লার্ভা খুঁজে পান। তিনি ল্যাভেন্ডারকে ২ লাখ টাকা জরিমানা করেন।
তাছাড়া এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় ডিএনসিসির সম্পত্তি কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সগীর হোসেন নাভানা রিয়েল এস্টেটকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

এ ছাড়া ‘খাজানা মিঠাই’, ‘দিগন্ত মানি এক্সচেঞ্জ’ ও ‘ব্রেড এন্ড বিয়ন্ড’ নামের তিনটি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স না থাকায় প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে রান্না করায় ‘খুশবু বিরানী’কে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাওয়ায় ডিএনসিসির মিরপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শফিউল আজম ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালকে ৭০ হাজার টাকা এবং ১টি টায়ারের দোকানকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

Print Friendly, PDF & Email