কাকরাইলে মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রীর ভবন গ্রাস প্রচেষ্টা মামলায় নিলাম ক্রেতার নিলাম মূল্য ও সরকারি রিসিভারের জামানত বাজেয়াপ্তের নিবেদন

আবু বকর : কাকরাইলের আলোচিত মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রীর ভবন গ্রাস প্রচেষ্টায় জড়িত জালিয়াত চক্রের নিলাম মূল্যের সমুদ্বয় অর্থ এবং সরকারি রিসিভারের জামানত রাষ্ট্রের অনুকুলে বাজেয়াপ্ত করার জন্য আদালতে নিবেদন পেশ করা হয়েছে। ঢাকার দেউলিয়া আদালতে জাল নিলাম কার্যক্রমের মাধ্যমে চাঞ্চল্যকর ৬ তলা ভবন গ্রাসের প্রক্রিয়ায় জড়িত আলোচিত অবসরপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ শেষ পর্যন্ত এই জালিয়াতির বিষয়ে নির্দেশ অনুযায়ী মহামান্য হাইকোটে লিখিত জবাব দাখিল করেননি। এই জালিয়াতির বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ৫০৩৮/২০১৯ নং রিট মামলায় সুপ্রিমকোর্টের হাইকোট বিভাগের বিচারপতি মোহাম্মদ মুজিবুর রহমান মিঞা এবং বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীম এর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ আজ সোমবার শুনানী শেষ করেছেন।এটি এখন আদেশের জন্য অপেক্ষমান রয়েছে।
গত ২০ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার শুনানীর সময় মহামান্য হাইকোট নিলাম কার্যক্রম পরিচালনাকারী সরকারি রিসিভার অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ সুলতান আহম্মেদ মিঞার উদ্দেশ্যে বলেছিলেন,“ আপনি একজন অবসরপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ।আপনার বিরুদ্ধে প্রতারনার গুরতর অভিযোগ।বিষয়টি আমরা ভালোভাবে দেখবো। আপনি স্বশরীরে উপস্থিত থাকবেন।” গত রবিবার ও সোমবার শুনানীর সময় আলোচিত ঐ অবসরপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ উচ্চ আদালতের আদেশ পালন করেননি। তিনি নিজে আদালতে অনুপস্থিত থাকলেও তার সহকারি আহসান হাবিব সর্বক্ষণ আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তাঁর অনুপস্থিতি এবং লিখিত জবাব ছাড়াই মামলার শুনানী শেষ হলো।
তবে ঢাকার দেউলিয়া বিষয়ক আদালতের ৪/৯৯ নং মামলার সরকারি রিসিভার অবসরপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ সুলতান আহম্মেদ মিঞা এবং দৈনিক যুগান্তর পত্রিকার ডেপুটি ম্যানেজার (বিজ্ঞাপন) আল-আমীন হাইকোটের নির্দেশে গত ২০ ফেব্রæয়ারি উল্লেখিত বেঞ্চে স্ব শরীরে উপস্থিত হন।এ দু’জনকে স্ব শরীরে হাইকোটে উপস্থিত হবার জন্য গত ১৯ জানুয়ারি প্রথম দফা এবং গত ৯ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় দফায় উল্লেখিত বেঞ্চ আদেশ দিয়েছিলেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী ইতিমধ্যে ঢাকার দেউলিয়া বিষয়ক আদালত এই মামলার মুল নথি হাইকোটের উল্লেখিত বেঞ্চে প্রেরন করেছেন।

রিটকারির আইনজীবি ব্যারিস্টার তীর্থ সলিল পাল জানান, আলোচিত এই ঘটনাটি ঘটেছে রাজধানী ঢাকার ৩৬/২ কাকরাইলে। বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক মেসার্স নিয়াজ গার্মেন্টস এর অনুকুলে ১৯৯৫ সালে ৩৯ লাখ ৭৫ হাজার টাকার ঋণ প্রদান করে। এই ঋনের অনুকুলে কোম্পানী কাফরুল থানায় স্থাপিত কোম্পানির কারখানা ব্যাংকের অনুকুলে মটগেজ প্রদান করেন। পরবর্তীতে কোম্পানি রুগ্ন হয়ে যায়। ফলে সময় মত ঋন পরিশোধ না করায় ব্যাংক অনাদায়ী ঋণের সুদাসল ৫৩ লাখ ২২ হাজার টাকার খেলাপি ঋণ আদায়ে ১৯৯৯ সালে কোম্পানির বন্দককৃত সম্পত্তি নিলাম করে টাকা আদায়ের চেষ্টা না, করে কোম্পানী ও তার পরিচালকদের দেউলিয়া ঘোষনা করাতে ঢাকার দেউলিয়া বিষয়ক আদালতে ৪/৯৯ নং মামলা দায়ের করেন। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাদের মামলায় ঐ কোম্পানির ৪০% শেয়ার হোল্ডারধারী চেয়ারম্যান রোকসানা পারভীনের বসত বাড়ীটিই শুধু দেউলিয়া আদালতের “বি” তপশিলে দেখান। কিন্তু অন্য পরিচালকদের কোন সম্পত্তির বিবরণ দেননি। অবশেষে ২০০৮ সালে কোম্পানি ও তার ৪ জন পরিচালককে দেউলিয়া ঘোষনা করা হয়। আদালত কর্তৃক রোকসানা পারভীনের “বি” তপসিল বর্ণিত সম্পত্তি বিক্রয় করে ব্যাংকের টাকা আদায়ে অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ সুলতান আহম্মেদ মিঞাকে রিসিভার নিয়োগ করা হয়। রোকসানা পারভীনের স্বামী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সেনা বাহিনীর অবসর প্রাপ্ত মেজর, কাজী মাজেদুর রহমান ২০১৪ সালের ১৩ নভেম্বর মারা যাওয়ার পর সরকারি রিসিভার অসহয় ঐ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের “বি” তপসিল বর্ণিত সম্পত্তি নিলামে বিক্রয় করার জন্য ১৩ মে ২০১৫ তারিখের জাতীয় দৈনিক যুগান্তর ও দৈনিক খবর পত্রিকা আদালতে পেশ করেন। পেশকৃত ঐ দু’টি পত্রিকায় দরপত্র আহবানের নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ দেখানো হয়। অথচ উল্লেখিত দু’টি পত্রিকার বর্ণিত ১৩ মে ২০১৫ তারিখের প্রকাশিত মূল পত্রিকার কোন সংস্করণ ও কোন সংখ্যায় এ ধরনের কোন নিলাম দরপত্রের বিজ্ঞপ্তিই প্রকাশিত হয়নি। উপরন্ত এই জাল জালিয়াতির নিলামে ঐ আড়াই কাঠা সম্পত্তির উপরে থাকা ভবনের কথা গোপন করে কারসাজির মাধ্যমে ১৫ কোটি টাকার সম্পদ ১ কোটি ২০ লাখ টাকায় নিলাম বিক্রয় আদালতের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয়। অতঃপর নিলাম গ্রহিতার অনুকুলে ঐ আড়াই কাঠা জমি হস্তান্তর বাবদ ঢাকা সাব রেজিঃ অফিসে ১৮১৩/১৬ নং দলিল সম্পাদন করা হয়। ঐ দলিলেও ৬ তলা ভবনের কথা গোপন করা হয়। এ ক্ষেত্রে ঘোষিত দেউলিয়ার অব্যাহতি প্রাপ্ত সম্পত্তির আইনগত অধিকারের ক্ষেত্রেও জালিয়াতি করা হয়। অতঃপর সরকারি রিসিভারের সহকারি জনৈক আহসান হাবিব ২২ জুন-২০১৭ তারিখে ঘটনাস্থলে নিজেকে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে পুলিশের সহায়তায় ভূয়া নিলামকৃত আড়াই কাঠা জমির দখল নিলাম গ্রহিতার অনুকুলে বুঝিয়ে দিতে এসে ৬ তলা ভবনসহ তপসিল বর্ণিত জমির দখল বুঝিয়ে দেন।
ব্যারিস্টার তীর্থ সলিল পাল জানান, তার মক্কেল রোকসানা পারভীন গত ২ মে ২০১৯ তারিখে মহামান্য সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে ৫০৩৮/২০১৯ নং রিট দায়ের করলে বিচারপতি আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ৬ মে-২০১৯ তারিখে রুল জারি করেন। একই সঙ্গে দেউলিয়া আদালত কর্তৃক অনুমোদিত নিলামের কার্যক্রম স্থগিত আদেশ সহ বিবাদীদের বিরুদ্ধে নিষেধাঙ্গা জারি করেন।