গুলিবিদ্ধ লাশের গলায় চিরকুটে লেখা ‘আমি ধর্ষণের হোতা’

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাভারে এক নারী পোশাক শ্রমিককে সংঘবদ্ধ ধর্ষনেরপর মৃত্যুর ঘটনার প্রধান আসামি রিপনের (৩৯) গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে সাভারের খাগান এলাকার আমিন মডেল টাউনের ভেতরে একটি মাঠ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। এ সময় নিহতের গলায় ‘আমি ধর্ষণ মামলার মূল হোতা’ লেখা একটি কাগজ পাওয়া য়ায়।

নিহত রিপন ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ এলাকার লতিফের ছেলে। তিনিও পোশাক শ্রমিক। থাকতেন আশুলিয়ায়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সাভারের খাগান এলাকার আমিন মডেল টাউনের ভেতরে একটি খালি মাঠে এক ব্যক্তির মরেদহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। পরে বিষয়টি সাভার মডেল থানায় জানানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। এসময় তার গলায় ঝুলিয়ে রাখা একটি কাগজে ‘আমি ধর্ষণ মামলার মূল আসামি’ লেখা ছিল।

আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জাবেদ মাসুদ বলেন, ‘নারী শ্রমিক ধর্ষণের ঘটনায় নিহত শ্রমিকের বাবার দায়ের করা মামলার মূল আসামি ছিলেন রিপন।’

সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল আওয়াল বলেন, ‘নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকার শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’ তবে কে বা কারা তাকে হত্যার পর এখানে ফেলে রেখে গেছে এ বিষয়ে তিনি কিছুই জানাতে পারেনি।

গত ৫ জানুয়ারি সাভারের আশুলিয়ায় সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হন ওই নারী। এর এক দিন পর ওই নারী মারা যান। এ ঘটনায় ওই নারীর বাবা মামলা দায়ের করেন।

Print Friendly, PDF & Email