চোরের ঘরে মিলল পুলিশের পিস্তল!

নিজস্ব বার্তা প্রতিবেদক : চোর ধরতে গিয়ে চোরের শয়ন কক্ষে পুলিশ পেয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ব্যবহার করা ৭ দশমিক ৬ বোরের একটি বিদেশি পিস্তল ও এক রাউন্ড গুলি। জব্দ করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ চোরাই মালামাল। গ্রেফতার করা হয়েছে মোহাম্মদ সোহান নামে ওই চোরকে।

রবিবার সকালে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান গুলশান বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) সুদীপ কুমার চক্রবর্তী।

তিনি বলেন, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ১০টার মধ্যে অজ্ঞাতনামা চোর ক্যান্টনমেন্ট থানার মানিকদি এলাকার আমিনুল ইসলামের দরজার তালা ভেঙে বাসায় চুরি করেন। তার বাসা থেকে ৫ লাখ ৬৫ হাজার টাকা, এক জোড়া স্বর্ণের বালা, দুইটি স্বর্ণের ব্রেসলেট, তিনটি স্বর্ণের গলার চেইন, দুইটি গলার হার, তিন জোড়া স্বর্ণের কানের দুল, ৮টি স্বর্ণের হাতের আঙটিসহ ১০ ভরি স্বর্ণলংঙ্কার চুরি হয়। এ ঘটনায় ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলার পর তদন্তে গিয়ে চোর সোহানের যোগসাজশ খুঁজে পাই পুলিশ।

আরো পড়ুন : কলেজে ভর্তি ও চাকরিতে নিয়োগের আগে ডোপ টেস্টের সুপারিশ

গ্রেফতারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সোহান জানান, তিনি বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে নিয়মিত ক্রাইম শো দেখে চুরিতে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন। সেখান থেকেই মূলত চুরির আধুনিক কলাকৌশল রপ্ত করেন। তিনি দিনের বেলাতে চুরি করাকে বেছে নিতেন। সোহানের বাসা থেকে উদ্ধার হওয়া মালামালের মধ্যে একটি পিস্তল, একটি ম্যাগাজিন, এক রাউন্ড গুলি, ৩০০ গ্রাম গাঁজা, নগদ ৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা, তিনটি চাকু, একটি খুর, ২টি স্ক্রু ড্রাইভার, লোহার তৈরি ৬টি র্যা থ, ২টি রেঞ্জ, ৫টি ঘড়ি, চাবি ২২টি, তিনটি মানিব্যাগ ও স্বর্ণালঙ্কারসহ অনেক কিছুই রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে গুলশানের ডিসি বলেন, তার কাছ থেকে যে বিদেশি পিস্তল পাওয়া গেছে সেটা আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবহার করে থাকে। এছাড়া অন্য কারও এই অস্ত্র ব্যবহার করার সুযোগ নেই। সোহান এই অস্ত্র কোথায় পেয়েছেন তা বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদে জানা যাবে। প্রাথমিকভাবে সোহান জানিয়েছে, এক লোকের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে বিদেশি পিস্তলটি কিনেছেন। কেনার পর তিনি এখনও ওই পিস্তলটি ব্যবহার বা প্রদর্শন করেনি বলে জানিয়েছেন। জব্দ করা অস্ত্রটি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কোন সংস্থার সদস্য ব্যবহার করতেন, সে বিষয়েও তদন্ত চলছে। অস্ত্রটি কারও খোয়া গিয়ে থাকলে কেউ যোগাযোগ করলে জানা যাবে।