জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা ২০১৯ নিয়ে বিক্ষুব্ধ রাজধানীর অভিভাবকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় শিশু পুরস্কার প্রতিযোগিতা ২০১৯ নিয়ে রাজধানীর অভিভাবকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠৈছেন। এই প্রতিযোগিতায় থানা পর্যায়ে প্রথম রেজিষ্ট্রেশনের বিধান হলেও প্রথম রেজিষ্ট্রেশন করা হচ্ছে স্কুল পর্যায়ে। ফলে অধিকাংশ প্রতিযোগি প্রতিযোগিতার মুলধারা থেকে ছিটকে পড়ছে। প্রতিযোগিতার নিয়মাবলিতে বলা হয়েছে, একই প্রার্থী তিনটি বিষয়ে অংশ নিতে পারবে এবং কোন প্রার্থী জাতীয় পর্যায়ে তিনটি বিষয়ে প্রথম হলে সে সেরাদের সেরা নির্বাচিত হবে। কিন্তু অধিকাংশ স্কুল তাদের প্রতিযোগিদের একের অধিক বিষয়ে অংশ গ্রহণ করতে দিচ্ছে না। ফলে প্রতিযোগিরা জাতীয় পর্যায়ে তিনটি বিষয়ে অংশ গ্রহণের সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে।এ কারণে গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন থানা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে অভিভাবকদের ভিড় করতে দেখা গেছে।

বাংলাদেশ শিশু একাডেমির প্রতিযোগিতার নিয়মাবলিতে উল্লেখ করা হয়েছে, উপজেলা/থানা রেজিষ্ট্রেশনের মাপই গ্রহণযোগ্য হবে। তবে এই রেজিষ্ট্রেশন স্কুল পর্যায়ে নাকি উপজেলা/থানা শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয়ে হবে সেবিষয়ে কোনদিক নির্দেশনা নেই। দেশের সকল স্কুলে থানা শিক্ষা অফিসার স্বাক্ষরিত স্বারকে প্রতিযোগিতার প্রতিটি বিষয়ে একক প্রার্থীর নাম পাঠাতে বলা হয়েছে। একারনে অনেক স্কুল একাধিক প্রার্থী পাঠানোর উদ্দেশ্যে একই প্রার্থীর নাম একাধিক বিষয়ে অন্তর্ভূক্ত করা থেকে বিরত রয়েছে। অথচ নিয়মাবলিতে বলা হয়েছে, একই প্রার্থী তিনটি বিষয়ে অংশ নিতে পারবে এবং কোন প্রার্থী তিনটি বিষয়ে প্রথম হলে সে সেরাদের সেরা নির্বাচিত হবে। ফলে অনেক স্কুলের শিক্ষার্থী সেরাদের সেরা হওয়া থেকে বঞ্চিত হবে। অনেক স্কুলে শিক্ষার্থীদের যথাযথ মান বিচারে স্বজনপ্রীতি ছাড়াও প্রভাবশালীদের কথানুযায়ী প্রতিযোগি পাঠাতে হচ্ছে। ফলে প্রকৃত মেধাবীরা সুযোগ বঞ্চিত হচ্ছে।

গতকাল শুরু হওয়া এ প্রতিযোগিতায় প্রথম থেকে দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থীরা তিনটি বিভাগে ২৪টি বিষয়ে সারাদেশের হাজার হাজার শিশু কিশোর অংশগ্রহণ করছে। প্রথমদিন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
আজ রবিবার থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের গান,নৃত্য,নাটক,আবৃত্তি,উচ্চাঙ্গ সংগীতের মুর্ছনায় সারাদেশের প্রতিযোগিতা উৎসবমুখর হয়ে উঠবে। বিভিন্ন জেলার সেরা শিল্পীরা বিভাগীয় মূল প্রতিযোগিতায় লড়াইয়ে নিজেদের সেরা শৈল্পিক উপস্থাপনের জন্য আজ উপজেলা পর্যায়ের প্রতিদ্বন্ধিতায় অংশ নেবে।

প্রতিযোগীদের দেশাত্ববোধক, রবীন্দ্র, নজরুল, ছড়াগান, ভাবসংগীত, লোকসংগীত, হামদ/নাত, উচ্চাঙ্গ সংগীত, উপস্থিত অভিনয়,ভরত নাট্যম ও ‘বঙ্গবন্ধুকে জানো বাংলাদেশকে জানো’ বিষয়ে প্রশ্নোত্তর প্রতিযোগিতা দিয়ে দিনের কর্মস‚চি শুরু হবে। এ ছাড়াও প্রতিযোগিতায় থাকছে, ক্বেরাত, আবৃত্তি সৃজনশীল নৃত্য, লালনগীতি-মুর্শিদী-হাসন রাজার গান, বিজ্ঞান যন্ত্র উদ্ভব, মাটির কাজ,মনিপুরী নৃত্য, তবলা গীটার- দোতারা,বাঁশি,কীবোর্ড প্রতিযোগিতা। এসব প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন বিষয়ে বিচারক হিসেবে শিল্পী,সংগীত শিক্ষক, কবি, লেখক, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টজনেরা দায়িত্ব পালন করবেন।

বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালক ও শিশু সাহিত্যিক আনজির লিটন জানান, উপজেলা, জেলা, এবং বিভাগীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা শেষে জাতীয় পর্যায়ের চুড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। পরে জাতীয় প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার প্রদান করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email