তিতাসের মৃত্যুতে যুগ্ম-সচিবের দায় নেই : তদন্ত প্রতিবেদন

নিজস্ব বার্তা প্রতিবেদক : ভিআইপি সুবিধার নামে ফেরি পারাপার প্রায় তিন ঘণ্টা আটকে রাখার কারণে মাঝনদীতে স্কুলছাত্রের মৃত্যুর ঘটনায় যুগ্ম সচিব মো. আব্দুস সবুর মন্ডলকে দায়ী করার কোনো ‘যৌক্তিক কারণ’ নেই। ঘটনা তদন্তে গঠিত সরকারের উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত কমিটি এমনটি জানিয়েছে। একইসঙ্গে মাদারীপুর জেলার ডিসিরও কোনো দায় খুঁজে পায়নি তদন্ত কমিটি।

উল্লেখ্য, আব্দুস সবুর মণ্ডলের অপেক্ষায় কাঁঠালবাড়ি ঘাট থেকে ফেরি ছাড়তে বিলম্ব হওয়ায় গত ২৫ জুলাই অসুস্থ তিতাস ঘোষ (১৩) এম্বুলেন্সেই মারা যায়।

অন্যদিকে, ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদনে ফেরিঘাটের তিন কর্মচারীকে দায়ী করা হয়েছে। কাঁঠালবাড়ি ফেরি ঘাটের ব্যবস্থাপক সালাম হোসেন, ঘাটের প্রান্তিক সহকারী খোকন মিয়া এবং উচ্চমান সহকারী ও গ্রুপ প্রধান ফিরোজ আলমকে দায়ী করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার এ-সংক্রান্ত তদন্ত প্রতিবেদন অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়ে দাখিল করা হয়েছে। প্রতিবেদনটি হাইকোর্টের বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে দাখিল করা হবে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আইনজীবী আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নির্ধারিত সময়ের দুই ঘণ্টা দেরিতে ফেরি ছাড়ার কারণে তিতাসের মৃত্যু হওয়ার কারণে তিনজন দায় এড়াতে পারে না।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, যুগ্ম সচিব আব্দুস সবুর মণ্ডল জানতেন না যে, ফেরিঘাটে মুমূর্ষু রোগী আছে। কোনো ব্যক্তি বিশেষের জন্য কোনোভাবেই ফেরি দেরি করে ছাড়া যাবে না বলে প্রতিবেদনে সুপারিশ করা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. রেজাউল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি এই প্রতিবেদন জমা দেন। তদন্ত দলের অপর দুই সদস্য হলেন- নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ন সচিব আ. সাত্তার শেখ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নিরাপত্তা বিভাগের যুগ্ম সচিব তোফায়েল ইসলাম।

Print Friendly, PDF & Email