বয়স-লিঙ্গ ভুল, কণিকার করোনা আক্রান্তের রিপোর্ট নিয়ে প্রশ্ন

নিজস্ব ডেস্ক প্রতিবেদক : বলিউডের খ্যাতনামা গায়িকার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবরে আপাতত সরগরম গোটা ভারত। তবে তার থেকেও বেশি আলোচনায় উঠে আসছে তার দায়িত্বজ্ঞানহীনের মতো কাজ, লন্ডন থেকে ফিরে ৩০০ জনের পার্টি করা, ঘুরে বেড়ানো, হাসপাতাল কর্মীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার সহ হাজারো তথ্য। এসবের মাঝেই কণিকার রিপোর্ট কতটা সঠিক তা নিয়ে প্রশ্ন তুললো গায়িকার পরিবার।

গায়িকার পরিবারের দাবি, কণিকাকে করোনা আক্রান্ত চিহ্নিত করে যে রিপোর্ট তারা পেয়েছে, তাতে বয়স ও লিঙ্গ দুটোই ভুল রয়েছে। রিপোর্টে কণিকার বয়স ৪১ এর বদলে ২৮ দেওয়া রয়েছে, আর লিঙ্গ পুরুষ। যার দুটোই ভুল। তাই কণিকার convid-19 পজিটিভ-এর রিপোর্ট নিয়ে প্রশ্ন তুলছে তার পরিবার।

যদিও কণিকা কাপুরের পরিবার যে প্রশ্ন তুলেছে, সে বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে কোনও বক্তব্য সামনে আসেনি।

প্রসঙ্গত, গত ২০ মার্চ কণিকা কাপুরের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর মেলে। তার জ্বর আসছিল এবং আরও বেশকিছু উপসর্গ দেখা দিয়েছিল বলে জানা যায়। এরপরই শারীরিক পরীক্ষা করে covid-19 পজিটিভ আসে। তখন থেকে তিনি হাসপাতালেই রয়েছেন।

হাসপাতালে খুব বিরক্ত করছেন করোনা আক্রান্ত ‘বেবি ডল’খ্যাত কণিকা :

ভারতের লক্ষ্ণৌ হাসপাতালে ডাক্তার, নার্সদের খুব বিরক্ত করছেন ‘বেবি ডল’খ্যাত গায়িকা কণিকা কাপুর। তিনিই বলিউড তারকাদের ভেতর প্রথম ও এখন পর্যন্ত একমাত্র করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

লক্ষ্ণৌ গান্ধী পিজিআইএমএস হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন কণিকা কাপুর। এই হাসপাতালের পরিচালক ডা. পি কে ধীমান জানান, কণিকা তাঁর হাসপাতালের কর্মচারীদের খুবই বিরক্ত করছে। যদিও কণিকা সেখানে ভিআইপি সুবিধাভোগী। তাঁকে সেখানে সর্বোচ্চ সেবা ও সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।

পি কে ধীমান বলেন, ‘কণিকাকে তারকা নয়, রোগী হিসেবে ভর্তি করা হয়েছে। কিন্তু তিনি এখনো তারকার মতোই আচরণ করছেন। রোগী হিসেবে তাঁর উচিত সবাইকে সহযোগিতা করা। তারকা ব্যাপারটা আপাতত ভুলে গিয়ে সাধারণ নিয়মকানুন মেনে চলা। আমি এর বেশি কিছু বলতে চাই না।’

জানা গেছে, কণিকাকে তাঁর ইচ্ছা অনুসারে গুটেন ফ্রি ডায়েট সরবরাহ করা হচ্ছে। তাঁর ঘরে উন্নত মানের টয়লেট, টিভি, এসি সবই আছে। তবু তিনি নানান আবদার করে যাচ্ছেন। নিয়মকানুন কিছুই মানছেন না।

কোয়ারেন্টিনে আসার আগেই করোনার গুরুত্বপূর্ণ সব লক্ষণ দেখা গিয়েছিল। কিন্তু এসব কিছু গোপন করে পার্টি করেছেন কণিকা। বিজেপি এমপি ও রাজস্থানের সাবেক মুখ্যমন্ত্রীর ছেলে দুশায়ন্ত সিংয়ের সংস্পর্শে এসেছিলেন তিনি। এই সাংসদ এখন স্বেচ্ছায় কোয়ারেন্টিনে।

যুক্তরাজ্য থেকে ফিরে তিনি বিমানবন্দরে কেবল থার্মাল স্ক্যানার দিয়ে তাপমাত্রা মেপেই বেরিয়ে গেছেন। কোয়ারেন্টিন না মেনে মুম্বাই শহরে ঘুরেছেন। হোলি খেলেছেন। লক্ষ্ণোতে পার্টি করেছেন। সেখানে আমন্ত্রিত ভিআইপিরা এখন ভয়ে আছেন। ভয়ে আছেন দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আসা ক্রিকেট দলও।

ভারতের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলতে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটাররা লক্ষ্ণৌর যে হোটেলে উঠেছিলেন, সে হোটেলে ছিলেন সদ্য লন্ডনফেরত কণিকাও। তাই মনের কোণে আশঙ্কা আছে তাঁদেরও।

কণিকার এ রকম কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণে ইতিমধ্যে অক্ষয় কুমার, ঋষি কাপুর, সোনা মহাপাত্রসহ অসংখ্য বলিউড তারকা তাঁদের ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। শরীরে কোভিড–১৯ ভাইরাস নিয়ে তিনি এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ঘুরেছেন। জনসমাবেশে গিয়েছেন।

কণিকার এই খামখেয়ালিপনায় ডাক্তার, রাজনৈতিক নেতা, বলিউড তারকাসহ সবাইকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে। ১৪ থেকে ১৬ মার্চ ডি কক-ডু প্লেসিদের সঙ্গে লক্ষ্ণৌর তাজ হোটেলে ছিলেন কণিকা। একটা পার্টিতেও অংশ নিয়েছিলেন।

কিন্তু মেলামেশার মাত্রাটা ঠিক কতটুকু ছিল, কেউ নিশ্চিত নয়। তবে টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে জানা গেছে, হোটেলের বুফেতে খাওয়া, অতিথিদের সঙ্গে আলাপচারিতা করা, অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া, সবকিছুই করেছেন কণিকা।

Print Friendly, PDF & Email