স্কুলছাত্রী অন্ত:স্বত্ত্বা, প্রেমিকের অস্বীকার

নিজস্ব জেলা প্রতিবেদক : দিনের পর দিন স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে প্রেমিকের সঙ্গে মেলামেশা। অতঃপর ধর্ষণের শিকার হয়ে তিন মাসের অন্ত:স্বত্ত্বা দশম শ্রেণির এক ছাত্রী। বিষয়টি গড়িয়েছে থানা পুলিশ পর্যন্ত। শেষ পর্যন্ত প্রেমিক মাসুদ রানাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের বাগাতিপাড়ায়। এ ঘটনায় নির্যাতিতার মা বাদি হয়ে মামলা করেছেন।

এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওই ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে যুবক মাসুদ রানা। স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে তারা বিভিন্নস্থানে সময় কাটাতেন। গত ১৫ই সেপ্টেম্বর ওই ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে ইচ্ছের বিরুদ্ধে তাকে ধর্ষণ করে মাসুদ। এসময় বাসায় অন্য কেউ ছিলো না। ধর্ষণের ফলে অন্তঃস্বত্ত্বা হয়ে যায় ওই ছাত্রী। বিষয়টি মাসুদকে জানানোর পর ওই ছাত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন তিনি।

বিষয়টি পারিবারিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করলে মাসুদ রানা ওই ছাত্রীকে বিয়ে করতে অস্বীকার করেন। এই অবস্থায় বুধবার সন্ধায় মাসুদ রানাকে আসামি করে বাগাতিপাড়া থানায় ধর্ষণ মামলা করেন ছাত্রীর মা। মামলা দায়েরের পর অভিযুক্ত যুবক মাসুদ রানাকে গ্রেপ্তার করেছে পুরিশ।

এ ব্যাপারে বাগাতিপাড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম শেখ বলেন, মাসুদ রানাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে আদালতের নির্দেশে তাকে নাটোর জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

মাসুদ রনা নাটোরের বাগাতিপাড়ার উপজেলার স্যানালপাড়া গ্রামের ফজলু রহমানের ছেলে।