পরিবারের সম্মতি ছাড়া বিয়ে, ২ দিন শিকলবন্দী কিশোরী

নিজস্ব জেলা প্রতিবেদক :  কুড়িগ্রামে পরিবারের সম্মতি ছাড়া নিজেই বিয়ে করায় ২ দিন ধরে শিকলবন্দী থাকা মনি নামে এক কিশোরীকে অবশেষে বুধবার বিকলে উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে উদ্ধারকৃত কিশোরীকে তার দাদা এলাহী বকস এর জিম্মায় দেওয়া হয়।

স্থানীয়রা জানায়, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের সন্যাসী সরকারপাড়া গ্রামের রিয়াজুলের কিশোরী মেয়ে রোকাইয়া খাতুন ওরফে হাওয়া মনি পারিবারের সম্মতি ছাড়া পার্শ্ববর্তী এক যুবকের সাথে বিয়ে রেজিস্ট্রি করে। এতে ঐ কিশোরীর পরিবার ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে শিকল দিয়ে পা বেঁধে ঘরে বন্দী করে রাখে।

ঘটনাটি এলাকাবাসী জানতে পেরে বুধবার দুপুরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও কুড়িগ্রাম থানা পুলিশকে খবর দেয়। পরে কুড়িগ্রাম সদর থানা পুলিশ, সমাজসেবা কর্মকর্তা ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে নিয়ে ঐ শিক্ষার্থীকে শিকল মুক্ত করে পুলিশি হেফাজতে নেয়।

পারিবারিক সূত্র জানায়, একই গ্রামের পল্লী বিদ্যুতে কর্মরত সবুজ মিয়ার সাথে গত বছর অক্টোবর মাসে গোপনে রেজিস্ট্রি করে বিয়ে করে ওই কিশোরী। সম্প্রতি তা জানাজানি হলে সে বাড়ি থেকে বারবার পালানোর চেষ্টা করে। ফলে পরিবারের সদস্যরা বাধ্য হয়ে তাকে শিকল বন্দী করে রাখে।

কুড়িগ্রাম সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহফুজার রহমান জানান, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের সন্যাসী সরকারপাড়া গ্রাম থেকে কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। রোকাইয়া খাতুন ওরফে হাওয়া মনি নামের কিশোরীকে শিকল দিয়ে বাঁধা অবস্থায় পেয়েছি। পরে সদর উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার এস এম হাবিবুর রহমান ও হলোখানা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান উমর ফারুকের উপস্থিতিতে মেয়েটিকে শিকল বন্দী থেকে উদ্ধার তার দাদার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।