সড়ক-ফুটপাতে রাখা নির্মাণসামগ্রী নিলামে বেচল ডিএনসিসি

নয়াবার্তা প্রতিবেদক : সড়ক ও ফুটপাতে অবৈধভাবে রাখা নির্মাণসামগ্রী ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে উন্মুক্ত নিলামে ১৩ লাখ টাকায় বিক্রি করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ডের চন্দ্রিমা হাউজিং এলাকার ৩টি জায়গায় ফুটপাত ও সড়কে অবৈধভাবে রাখা সব নির্মাণসামগ্রী জব্দ করে উন্মুক্ত নিলাম ডাকেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এ অভিযান পরিচালনা করেন অঞ্চল-৫ এর আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতাকাব্বীর আহমেদ।

নির্মাণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে—রড, ইট, বালু ও অন্যান্য সামগ্রী। জনসাধারণের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করায় জব্দকৃত মালামাল নিলামে ভ্যাট ও আয়করসহ ১৩ লাখ ৩৭ হাজার ৬শ’ টাকায় বিক্রি করা হয়। এ সময় হাউজিংয়ের ভেতরে অবস্থিত বিভিন্ন ধরনের অবৈধ গেট অপসারণ করা হয়। হাউজিং কোম্পানিকে সাত দিনের মধ্যে সব গেট অপসারণ এবং সব রাস্তা ও ফুটপাত দখলমুক্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

এ ছাড়া এডিস মশা ও ডেঙ্গুর প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে কয়েকটি রাস্তায় ঘুরে ঘুরে জনগণের মাঝে ডেঙ্গু সচেতনতাবিষয়ক লিফলেট বিতরণ করা হয়।

অঞ্চল-১ এর আওতাধীন ওয়ার্ড নং ১ ও ১৭ এর উত্তরা সেক্টর-৭, ৯ ও ১০ এবং খিলক্ষেত এলাকায় আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুলকার নায়ন এই অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযান পরিচালনাকালে রাজউক মার্কেটের দক্ষিণ ও পূর্ব পাশে অবৈধ ফলের দোকান ও জুসবার উচ্ছেদ করা হয়। এ ছাড়া বাসা বাড়ি ও নির্মাণাধীন ভবনে, ফাঁকা প্লটে মশকবিরোধী অভিযান ও সমন্বিতভাবে এডিশ মশাবিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এ ছাড়া ডিএনসিসি ৪০ নম্বর ওয়ার্ডের ১০০ ফিট এলাকায় আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জিয়াউল বাসেত ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা করেন। অভিযানে প্রায় ৪০টি অবৈধ দোকান, অবৈধ সাইনবোর্ড ও রাস্তার ওপর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করায় এক মামলায় ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।