গতিশীল নেতৃত্বের কারণে ঢাকা কাস্টম হাউসে রাজস্ব আদায় ক্রমশ বাড়ছে

গাজী আবু বকর : ঢাকা কাস্টম হাউস এর গতিশীল নেতৃত্বে রাজস্ব আদায় কাঠামো শক্তিশালী হয়েছে । গত ৬মাসে সঠিক ব্যবস্থাপনার কারণে ২ হাজার ৭’শত ৭৭ কোটি ৯৯ লাখ টাকার রাজস্ব আহরিত হয়েছে। এই সময়ে রাজস্ব আহরণে প্রবৃদ্ধির হার দাড়িয়েছে ১৯.৭২ শতাংশ।গত অর্থ বছরে একই সময়ে ২ হাজার ৩’শত ২০ কোটি ৩৫ লাখ টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছিলো। ঢাকা কাস্টমস হাউসে কমিশনার মোহাম্মদ ফাইজুর রহমান গত ২৯ ‍আগষ্ট যোগদানের পর যুগোপযোগি বাস্তবমুখি পদক্ষেপ গ্রহন করায় রাজস্ব আহরণে প্রতি মাসের ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধি কাটিয়ে উঠে ধণাত্মক প্রবৃদ্ধি অর্জিত হচ্ছে।

ঢাকা কাস্টম হাউস সূত্র জানিয়েছে, বর্তমান কমিশনারের স্বচ্ছ ভাবমূর্তি, পদায়ন নীতিমালাসহ আইনি কাঠামোর দৃঢ়তা থাকায় কাস্টম হাউজের ভাবমূর্তি বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম দুই মাসের রাজস্ব আহরনের ঋণাত্মক প্রবণতার বিপরীতে সেপ্টেম্বর, ২০২১ হতে আদায় বহুগুণ বৃদ্ধি পাওয়ায় রাজস্ব প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত হয়েছে। আমদানি নীতি আদেশ ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের বিদ্যমান এসআরও যথাযথভাবে প্রতিপালনে দৃঢ়প্রত্যয় এক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছে।

সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরে জুলাই মাসে রাজস্ব আদায়ের লক্ষমাত্রা ছিলো ৩’শত ৯৪ কোটি টাকা।আদায় হয় ৩’শত ৩৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা। জুলাই মাসে প্রবৃদ্ধি ছিলো ঋণাত্মক ২৪.৭৮%। আগষ্ট মাসে লক্ষমাত্রা ছিলো ৪’শত ৯৭ কোটি টাকা।আদায় হয় ৪’শত ৪৬ কোটি ৭২ লাখ টাকা। আগষ্ট মাসে প্রবৃদ্ধি ছিলো ঋণাত্মক ৪.৯২%।সেপ্টেম্বর মাসে লক্ষমাত্রা ছিলো ৫’শত ৮৫ কোটি টাকা।আদায় হয় ৪’শত ৬৬ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। সেপ্টেম্বর মাসে প্রবৃদ্ধি ছিলো ধণাত্মক ৩.৫৬%।অক্টোবর মাসে লক্ষমাত্রা ছিলো ৫’শত ৭৬ কোটি টাকা।আদায় হয় ৪’শত ২৮ কোটি ৪১ লাখ টাকা। অক্টোবর মাসে প্রবৃদ্ধি ছিলো ধণাত্মক ১১.৩৭%।নভেম্বর মাসে লক্ষমাত্রা ছিলো ৫’শত ৮০ কোটি টাকা।আদায় হয় ৫’শত ৯ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। নভেম্বর মাসে প্রবৃদ্ধি ছিলো ধণাত্মক ১৪.৪৯%।ডিসেম্বর মাসে লক্ষমাত্রা ছিলো ৫’শত ৮০ কোটি টাকা।আদায় হয় ৫’শত ৮৮ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ডিসেম্বর মাসে প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে ধণাত্মক ১৯.৭২%।

ঢাকা কাস্টম হাউসের উপ-কমিশনার সানোয়ারুল কবির জানান, অনিয়মের প্রতি কঠোর হস্তে দমন নীতি এবং জালিয়াতি ও শুল্ক ফাঁকি সংশ্লিষ্ট সিএন্ডএফদের বিরুদ্ধে লাইসেন্স বাতিল সহ ফৌজদারি কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। জরিমানা প্রথার কঠোর প্রয়োগসহ রাজস্ব কর্মকর্তাদের কার্যক্রমে কঠোর মনিটরিং এর প্রেক্ষিতে কার্গো দিয়ে আমদানিকৃত পণ্যের রাজস্ব বিগত কয়েক সপ্তাহে বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বিষয়টি জাতীয় রাজস্ব বোর্ড সহ ঊর্ধ্বতন মহলে প্রশংসিত হয়েছে। কুরিয়ার কার্যক্রম ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে যৌথ কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং কার্যক্রমে স্বচ্ছতা আনার চেষ্টা করা হচ্ছে।

আমদানিকৃত বাণিজ্যিক পণ্যের রাজস্ব পূর্বের যেকোনো সময়ের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে।কুরিয়ার ইউনিটে সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহনের প্রেক্ষিতে গতিশীলতা বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রিভেন্টিভ টিম কর্তৃক গৃহিত বিভিন্ন কার্যক্রমে গত এক মাসে দুই কোটির উপর অতিরিক্ত রাজস্ব আদায় ও দলিল জালিয়াতির কারণে অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

ঢাকা কাস্টম হাউসের অন্য একটি সূত্র জানায়, সম্প্রতি প্রিভেন্টিভ কর্মকর্তাগণ বেশ কয়েকটি শুল্ক ফাঁকি চোরাচালানের মামলা দায়ের করায় এসব কাজে সংক্ষুব্ধ হয়ে চোরাচালানকারী দলিলাদি জালিয়াতি চক্র কাস্টম হাউস ঢাকা ও এর কর্মকর্তাদের নামে অপ্রীতিকর কুৎসা রটানোর চেষ্টা করছে।যা বিশ্ববাণিজ্যের সর্বোচ্চ সহযোগিতায় উত্তম পরিবেশ নিশ্চিতের পথে অনাকাঙ্খিত।