স্বামীর গায়ে অ্যাসিড ছুঁড়ে মারা ও হত্যাচেষ্টার মামলায় গায়িকা মিলার বিচার শুরু

নয়াবার্তা বিনোদন প্রতিবেদক : সাবেক স্বামী এস এম পারভেজ সানজারিকে অ্যাসিড ছুঁড়ে মারা ও হত্যাচেষ্টার মামলায় জনপ্রিয় পপ শিল্পী মিলার বিচার শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। রোববার (১৪ নভেম্বর) বিচারক এ এইচ এম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া জিন্না এ আদেশ দেন।

মিলার বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের ৫ জুন অ্যাসিড হামলার অভিযোগে মামলাটি করেছেন এস এম পারভেজ সানজারির বাবা এস এম নাসির উদ্দিন। উত্তরা পশ্চিম থানায় দায়ের করা এ মামলায় মিলা ছাড়াও তার সহকারী পিটার কিমকে আসামি করা হয়েছে। সে ঘটনায় দুর্বৃত্তদের ছোড়া অ্যাসিডে দগ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি ছিলেন সানজারি।

এর আগে চলতি বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি সাবেক স্বামীকে হত্যাচেষ্টার মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করে স্থায়ী জামিন পেয়েছেন গায়িকা মিলা। ঢাকার জেলা ও দায়রা জজ আদালতে শুনানি শেষে বিচারক দিলারা আলো চন্দনা দশ হাজার টাকা মুচলেকায় তার জামিন মঞ্জুর করেছেন।

তখন তিনি জানিয়েছিলেন, ‘আমার জামিন পাওয়াটা বড় কথা না। কারণ, আমাকে মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। এখন পর্যন্ত এই মিথ্যা মামলা নিয়ে আমাকে সবার কাছে জবাবদিহি করতে হচ্ছে। এর চেয়ে দুঃখজনক আর কিছু হতে পারে না। সবাই যেন আমার নামটা বেঁচে খাচ্ছে। আপনাদের লাভ কি আমাকে এভাবে অসম্মান করে। আমাকে নিয়ে এভাবে খেলার তো কোনো মানে নেই। আমাকে নিয়ে কেন এভাবে গেম হচ্ছে। এখন থেকে আমি আর কাউকে আমাকে নিয়ে খেলতে দেব না।’

মিলা দাবি করেছিলেন, আদালতে বসা অবস্থায় তিনি তার সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারির কাছ থেকে হুমকি পেয়েছেন। কিন্তু এতে তিনি মোটেও বিচলিত হননি। তবে যতই হুমকি দেওয়া হোক কোনো অবস্থাতেই স্বামীর বিরুদ্ধে দায়ের করা নির্যাতন ও যৌতুকের মামলা প্রত্যাহার করবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেন এই পপ গায়িকা।

তিনি বলেন, ‘আমি বারবার বলেছি, আমার মামলা সত্য, আমি এই মামলা তুলে নেব না। দরকার হয় আমি জেলে যাব, তারপরও নত হব না। কারণ, আমিই সত্য। আর এই সত্যের বিচার একদিন হবেই।’

২০১৭ সালের ৫ অক্টোবর রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় মারধর ও যৌতুকের অভিযোগে মিলা বাদী হয়ে তার সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারির নামে মামলা করেন। মামলার পরই সানজারিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। একটি বেসরকারি এয়ারলাইন্সের পাইলট পারভেজ সানজারির সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে মিলার প্রেমের সম্পর্কের পর ২০১৭ সালের ১২ মে তারা বিয়ে করেন। কিন্তু বিয়ের ঠিক ১৩ দিন পর থেকেই তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ শুরু হয়। পরবর্তীতে বিচ্ছেদ হয় এই দম্পতির।