শাহজাহানপুরে জোড়া খুন : কে এই শুটার মাসুম?

নিজস্ব প্রতিবেদক : তিনি এলেন, প্রকাশ্য রাস্তায় গুলি চালালেন। কেড়ে নিলেন দুই দুটি তাজা প্রাণ। শত শত মানুষের ভিড়ে রাজধানীর শাহজাহানপুরের জোড়া খুনের শুটার কে এই মাসুম মোহাম্মদ আকাশ? কীভাবে তিনি হয়ে ওঠেন খুনি? কী বলছে তার জীবনবৃত্তান্ত?

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একাধিক কর্মকর্তার কাছে জানা গেছে শুটার মাসুমের চমকপ্রদ কিছু তথ্য।

জানা গেছে, ছেলেবেলায় দারুণ মেধাবী ছিলেন তিনি। মাসুমের বাবা ছিলেন রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকার একটি স্কুলের শিক্ষক। মা গৃহিনী। তিন-ভাইবোনের মধ্যে মাসুম দ্বিতীয়। রাজধানীর পশ্চিম মাদারটেক এলাকায় তাদের পরিবারকে সবাই শিক্ষিত ও ভদ্র বলেই জানে।

মাসুমের একাধিক পরিবেশীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রায় ১৫ বছর আগে হঠাৎ মাসুমকে বাসা থেকে বের করে দেন তার বাবা।

মাসুমের মা জানান, মাসুম তখন ছাত্রলীগে যোগ দিয়েছিলেন। রাতদিন বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতেন। এ নিয়ে বাবার সঙ্গে শুরু হয় মনোমালিন্য। শাসন-বারণ, অনুনয় সব যখন ব্যর্থ হলো তখন মনের কষ্টে মাসুমকে বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে বলেন তার বাবা।

সেই যে মাসুম বাড়ি থেকে বের হলেন আর ফিরে আসেননি। এরপর কেটে গেছে একে একে প্রায় ১৫ বছর। এরমধ্যে তিনি আর বাবা-মায়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেননি। বিয়ে করেছেন, সংসারে এসেছে সন্তান।

মাসুমের মা বলেন, মাসুমের বিয়ের খবর আমরা জেনেছি লোকমুখে। তার ছেলে না মেয়ে হয়েছে সেটাও আমরা জানি না।

পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর মাসুম হতাশায় ভুগছিলেন বলে ধারণা করছেন তার পরিবারের লোকেরা। কিন্তু মাসুম যে টাকার বিনিময়ে কাউকে গুলি করে হত্যা করার মতো মানসিক অবস্থায় চলে যেতে পারেন তা ভাবতে পারছেন না তারা।

এদিকে মাসুমের স্ত্রী দীনা পুলিশকে জানিয়েছেন, স্বামীর সঙ্গে তিন মাস ধরে তার বনিবনা কম ছিল। তাই বাসা ছেড়ে গোড়ানে বাড়িতে এসে থাকছেন।

ঢাকা মহানগর ডিবি সূত্রে জানা গেছে, শাহজাহানপুরে জোড়া খুনের আগে আকাশের নামে ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন থানায় মোট ৪টি মামলা ছিল। শুধুই আর্থিক সুবিধার জন্য নয়, মাসুমকে সেসব মামলা থেকে অব্যাহতি পাইয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে তাকে এই হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ত করা হয়। তবে কারা তাকে ভাড়া করেছিল তদন্তের স্বার্থে তা জানায়নি ডিবি।

ডিবি জানিয়েছে, হত্যার ঘটনার তিনদিন আগে অপরিচিত একজন এসে মাসুম ও তার সহযোগীকে মোটরসাইকেল ও অস্ত্র দিয়ে যায়। ২৩ মার্চ মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম টিপুকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মাসুম। তবে তা ব্যর্থ হয়।

পরেরদিন জাহিদুলকে তার রেস্টুরেন্টে হত্যা করতে যান। সেখানে ভিড় থাকায় জাহিদুলের গাড়ি অনুসরণ করে শাহজাহানপুরের আমতলা এলাকায় পৌঁছান মাসুম ও তার সহযোগী।

শাহজানপুর থানা সূত্রে জানা যায়, ২৪ মার্চ রাত ১০টার দিকে জাহিদুল মাইক্রোবাসে করে শাহজাহানপুর আমতলা কাঁচাবাজার হয়ে বাসায় ফিরছিলেন। শাহজাহানপুর ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের সামনে পৌঁছালে হেলমেট পরা দুর্বৃত্তরা তাকে লক্ষ্য করে ১২ রাউন্ড গুলি করেন। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান জাহিদুল। তার গাড়িচালক মনির হোসেন গুলিবিদ্ধ হন। এ সময় জাহিদুলের গাড়ির পাশ দিয়ে রিকশায় যাচ্ছিলেন বদরুন্নেসা কলেজের ছাত্রী সামিয়া আফরান প্রীতি। তিনিও গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান।

টিপু হত্যা মামলার তদন্তের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত একাধিক কর্মকর্তা সমকালকে জানান, হত্যার পর ডিবির ছয় কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে যান। তারা শুরুতেই একাধিক সিসিটিভি ফুটেজ দেখেন। কথা বলেন যারা ওই এলাকা সম্পর্কে খোঁজখবর রাখেন এমন বাসিন্দা ও পুলিশের সোর্সদের সঙ্গে। পাশাপাশি সিসিটিভি ফুটেজ ধরে চলে বিশ্নেষণ। এতে তারা প্রথমে একমাত্র শুটারের দৈহিক গড়ন ও উচ্চতা সম্পর্কে একটা স্পষ্ট ধারণা নেন। গোয়েন্দারা দেখেন, শুটারের গড়ন, উচ্চতাও ৫ ফুট ৬ ইঞ্চির বেশি হবে। ফুটেজ বিশ্নেষণের পাশাপাশি প্রযুক্তিগত তদন্তও শুরু করেন তারা। এরপর ঘটনার প্রথম রাতেই ওই এলাকার এক ব্যক্তির খোঁজ পান। তথ্য জানতে তাকে ডেকে আনা হয় গোয়েন্দা হেফাজতে। ওই ব্যক্তি মাসুমের দীর্ঘদিনের পরিচিত। ওই রাতে গোড়ান ক্লাবে মাসুমের অস্বাভাবিক আচরণের কিছু বর্ণনা গোয়েন্দাদের দেন তিনি। এরপরই মাসুমের নামটি সামনে আসে। তার বাসায় ওই রাতে খোঁজ নেওয়া হয়। এরপর দেখা যায়, মাসুম বাসায় নেই। কোথায় রয়েছে তাও পরিবারের সদস্যরা জানেন না।

তখন তাকে ঘিরে সন্দেহ বাড়তে থাকে। এর পরই মাসুমের স্ত্রী দীনাকে গোয়েন্দারা জিজ্ঞাসাবাদ করেন। স্বামীর অবস্থান সম্পর্কে তিনিও কোনো তথ্য দিতে পারেননি। এরপরই গোয়েন্দারা প্রযুক্তিগত ও সোর্সনির্ভর তদন্ত করে জানতে পারেন, ওই রাতেই ঘনিষ্ঠ এক বন্ধুর এলিয়ন গাড়ি নিয়ে জয়পুরহাটের উদ্দেশে ঢাকা ছেড়েছেন মাসুম। আর তার সহযোগীরা ভিন্ন রুট ধরে। এর পরই গোয়েন্দারা মাসুমকে ধরতে কাজ শুরু করেন। ঢাকা থেকে টিম চলে যায় জয়পুরহাট। সীমান্ত হয়ে পালাতে ব্যর্থ হয়ে মাসুম চলে যায় বগুড়া। রেজিস্ট্রারে নাম-পরিচয় না লিখেই সেখানের একটি অখ্যাত হোটেলে ওঠেন। এক বন্ধু তাকে এতে সহায়তা করেন। পরে বগুড়া পুলিশের সহায়তায় ঢাকার গোয়েন্দারা তাকে গ্রেপ্তার করেন। এ সময় খুব ধীরস্থির ও স্বাভাবিক ছিলেন তিনি।

বগুড়া সদর পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক তাজমিলুর রহমান জানান, ঢাকার ডিবির দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রোববার সকালে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় হোটেলের দ্বিতীয় তলার ১ নম্বর কক্ষে অবস্থান করছিলেন শুটার মাসুম। তার ছবি আগে থেকেই পাঠানো হয়েছিল। সেই ছবি দেখে মাসুমকে শনাক্ত করা হয়। ধরা পড়ার পর অকপটে তিনি আওয়ামী লীগ নেতা টিপুকে গুলি করে হত্যার কথা স্বীকার করেন।

জানা যায়, হত্যা মিশন সফল করে দ্রুত শাহজাহানপুর ও মতিঝিল এলাকা ত্যাগ করার কৌশল নেন মাসুম। আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুলকে হত্যা করে শাহজাহানপুর থেকে মোটরসাইকেল নিয়ে মাসুম রাজারবাগ মোড়ে চলে যান। এরপর মালিবাগ উড়াল সড়ক হয়ে বাংলামোটরে এসে নামেন। সেখান থেকে মগবাজার হয়ে হাতিরঝিলে ঢুকে পড়ে্ন। বাড্ডার ইউলুপ হয়ে ইস্ট-ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির সামনে দিয়ে বনশ্রী হয়ে গোড়ানে প্রবেশ করেন। এরপর সেখানকার ছাপরা মসজিদের কাছে গিয়ে অস্ত্র ও মোটরসাইকেল একজনকে হস্তান্তর করে ক্লাবে ঢোকেন। মিনিট দশেকের মতো গোড়ান ক্লাবে ছিলেন মাসুম।

শুটারকে শনাক্ত করতে তার বন্ধুসহ অন্তত ১৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ ও তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জাহিদুল ইসলাম টিপু ও সামিয়াকে হত্যায় মাসুমের অংশ নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। ডিএমপি গোয়েন্দা বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আকাশ এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন।

এ ঘটনায় ২৫ মার্চ দুপুরে জাহিদুল ইসলাম টিপুর স্ত্রী ফারজানা ইসলাম ডলি বাদী হয়ে শাহজাহানপুর থানায় অজ্ঞাতদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। আজ সোমবার মামলায় শুটার মাসুম মোহাম্মদ আকাশের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।