অল কমিউনিটি ক্লাবে ভাঙচুরের অভিযোগ পরীমনির বিরুদ্ধে

নিজস্ব বার্তা প্রতিবেদক : ঢাকা বোট ক্লাবে ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার অভিযোগে পরীমনি মামলা করার দুদিন পর গুলশানের অল কমিউনিটি ক্লাবে এই নায়িকার বিরুদ্ধে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে।

৭ জুন পরীমনি ও তাঁর সঙ্গে আরও কয়েকজন ওই ক্লাবে গিয়ে গ্লাস ভাঙচুর করেছেন বলে এই অভিযোগ তোলা হয়েছে।

ঢাকা বোট ক্লাবে চিত্রনায়িকা পরীমণির ঘটনার আগের দিন রাতে গুলশান অল কমিউনিটি ক্লাবে এই অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। ৭ জুন রাতে গুলশান-২ নম্বরের ১৩৭ নম্বর রোডের ২ নম্বর বাড়িতে অবস্থিত অল কমিউনিটি ক্লাবে পরীমণির প্রবেশ নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে।

গুলশান পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা জানান, গত ৭ জুন দিবাগত রাত ১টা ৫০ মিনিটের দিকে একটি সাদা রঙের গাড়িতে করে পরী মণি ও তার সঙ্গে আরো তিন জন গুলশান অল কমিউনিটি ক্লাবের সামনে নামে। এসময় ক্লাবের গেট বন্ধ ছিল। পরী মণির পরনে ছিল নীল রঙের জিন্স প্যান্ট ও সাদা রঙের টপস।

অল কমিউনিটি ক্লাবের সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, পরীমণি ক্লাবের প্রবেশ গেটে লাথি মারেন। এরপর ভিতর থেকে গেট খুলে দেওয়া হয়। তারা ক্লাবের ভিতরে বারে গিয়ে মদপান করতে চায়। কিন্তু রাত ১১ টার পর ক্লাব বন্ধ করার নিয়ম থাকায় বার খুলতে অস্বীকৃতি জানায় ক্লাব কর্তৃপক্ষ। এসময় পরী মণি উচ্চবাচ্যে হৈ চৈ করতে থাকেন। তখন ক্লাব কর্তৃপক্ষ তাদেরকে সার্ভিস দেন।

পরী মণি ও তার সহযোগীরা এতে সন্তুষ্ট না হয়ে চিৎকার ও চেঁচামেচি করেন। এসময় পরী মণি নিজেই ৯৯৯ এ ফোন করেন। ফোন পেয়ে গুলশান থানা পুলিশের একটি টহল টিম ক্লাবে যায়। পুলিশ ভিতরে ঢুকে অল কমিউনিটি ক্লাব কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলার পর পরী মণিকে ক্লাব থেকে চলে যেতে বলেন। ঘটনার পর সিসি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায় পরী মণি তার অপর তিনজন সহযোগীকে সাথে নিয়ে ক্লাব থেকে বের হয়ে গাড়িতে করে চলে যান।

পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ৯৯৯ এ ফোন পেয়ে পুলিশের টহল টিম অলকমিউনিটি ক্লাবে গিয়েছিল। বিষয়টি ক্লাবের আভ্যন্তরীণ বিষয়। তারা কোনো অভিযোগ করেনি। তবে ঘটনাস্থলে পুলিশের যাওয়া এবং ক্লাব কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলার বিষয়টি থানায় নথিভুক্ত করা হয়েছে।

গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম আজ সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় বলেন, ৭ জুন গভীর রাতে ৯৯৯–এর একটি কলে গুলশান থানা-পুলিশের একটি দল অল কমিউনিটি ক্লাবে যায়। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কথা-কাটাকাটির জেরে ক্লাবে গ্লাস ভাঙচুর করেছেন পরীমনি। পরে আর এ ঘটনায় কেউ অভিযোগ করেননি।

জানতে চাইলে পরীমনি বলেন, ‘এটা ফালতু একটা অভিযোগ। এত দিন পরে কেন এই অভিযোগ?’

এসব বিষয়ে অল কমিউনিটি ক্লাবের সভাপতি এ কে এম আলমগীর হোসেন বলেন, ক্লাবের একটি নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। এ ঘটনায় ক্লাবের একজন সদস্যকে শোকজ করা হয়। ওই সদস্য ক্ষমা চেয়ে ক্লাব কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন। আমরা বিষয়টি ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখেছি। আমরা কোনো সদস্যের সঙ্গে আসা গেস্টকে শোকজ করতে পারিনা। আর ওই দিনের ঘটনার ব্যাপারে আমরা পুলিশের কাছে কোনো অভিযোগ করিনি।

এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে অল কমিউনিটি ক্লাবের সভাপতি কে এম আলমগীর ইকবাল বেসরকারি টেলিভিশন ‘সময়’কে বলেছেন, ঘটনার দিন পরীমনি একজন সদস্যের মাধ্যমে কয়েকজনকে নিয়ে ক্লাবে আসেন। তার পোশাক দেখে ক্লাবের একজন সদস্য আপত্তি তোলেন। তাঁকে চলে যাওয়ার অনুরোধো করেন। কিন্তু পরীমনি তার কথা না শোনায়, তিনি নিজেই চলে যান। পরীমনি যে সদস্যের মাধ্যমে এসেছিলেন তিনিও পরীমনিকে চলে যেতে বলেন। পরিমনী কথা না শোনায় এক পর্যায়ে ওই সদস্যও চলে যান।

আলমগীর ইকবাল বলেন, পরীমনি তখন চিৎকার চেচামেচি শুরু করেন। ক্ষিপ্ত হয়ে গ্লাস, ছাইদানী ছুড়ে মারতে থাকেন। পরীমনির সঙ্গে থাকা ব্যক্তিরা ৯৯৯ –এ কল করেন। পুলিশ আসার পরও তিনি এগুলো ছুড়তে থাকেন। তখন ক্লাবের দুজন ওয়েটার ছিল। এ সময় পুলিশ তাদের সঙ্গে কথা বলেন। তাদের অভিযোগ শোনেন। কিছুক্ষণ পর পুলিশের অনুরোধে পরীমনি ও অন্যরা চলে যান। এরপর আর কোনো ঘটনা ঘটেনি। তিনি বলেন, পরীমনি যে সদস্যের সঙ্গে ক্লাবে এসেছিলেন তাকে কারন দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ক্লাবের নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৮ জুন পরীমনি ঢাকা বোট ক্লাবে গেলে সেখানে তাঁকে ধর্ষণ ও হত্যার চেষ্টা হয় বলে অভিযোগ করেন। এই ঘটনায় গত সোমবার ৬ জনকে আসামি করে মামলা করেন ঢাকাই সিনেমার আলোচিত এই নায়িকা। মামলার পর পুলিশ প্রধান দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে।